থাইল্যান্ড ট্যুরিস্ট ভিসা

আজকের আর্টিকেলে আলোচনা করবো থাইল্যান্ড এর ভিসার পুরো স্টেপ নিয়ে।

থাইল্যান্ডের ভিসা আপনি দুইভাবে করতে পারেন। নিজে অথবা এজেন্সি কে দিয়ে। যদি প্রথমবার ভিসা করান আর বয়স কম হয় তবে নিজে নিজে এপ্লাই করা উচিৎ। এজেন্সি কে দিয়ে প্রথমবার করালে না পাবার সম্ভাবনা বেশি। এর কারণ হল একই কভার লেটার আর একই ট্র্যাভেল আইটিনারি দেয়া। ওরা সবার জন্য আলাদা আলাদা এসব বানায় না একই জিনিষ কপি পেস্ট করে। নিজে নিজে থাই ভিসা করা খুব ঝামেলার কাজ। যদি এজেন্সি কে দিয়েই করাতে চান তবে বলবো কভাল লেটার আর ট্র্যাভেল আইটিনারি টা নিজে বানিয়ে দিতে । নিজে এপ্লাই করতে গেলে খরচ বেশি এ পড়ে দিনশেষে। এজেন্সি ১-২০০ টাকা বেশি নেয় ভিসা ফি এর থেকে । আমি নিজে পরেরবার করলে সব পেপার রেডি করে কোন এজেন্সি কে দিয়েই করাবো।

Read More

দুইটি সুপার ভিসা ,যা আপনার পাসপোর্টে থাকলে অর্ধেক পৃথিবীর দরজা খুলে যাবে।

দেশের বাইরে কোথাও ভ্রমণে যাবার জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিষ হল ভিসা। পাসপোর্ট ইনডেক্সে বাংলাদেশের পাসপোর্টের র‍্যাঙ্কিং ৯৬ অর্থাৎ শেষ দশের মধ্যে। আমাদের ভিসা ফ্রি এক্সসেস বা ভিসা অন এরাইভাল দেয় ৩৫ টা দেশ আর ই ভিসা নিয়ে যেতে পারবেন ১১ টি দেশে সব মিলে আপনি ৪৬ টা দেশে যেতে পারবেন এভাবে।এই দুর্বল পাসপোর্ট কে শক্তিশালী করতে হলে আপনার পাসপোর্টে দুইটা ভিসা থাকলেই হবে, সেঞ্জেন আর আমেরিকান ভিসা। এই দুই ভিসা দিয়ে আপনি আরও ৫০ টির মত দেশে ভিসা ফ্রি এক্সেস পাবেন। আর এই দুই ভিসা পাসপোর্টে থাকলে বাকি দেশগুলোর ভিসা পাবার সম্ভাবনা আরও বেড়ে যায়। যদিও এই দুই ভিসা পাওয়া অনেক কঠিন। তবে একজন সত্যিকারের ভ্রমণকারী কখনই ভিসার জন্য আটকে যাবে না, একটা না একটা পথ বেরুবেই। যারা ওয়ার্ল্ড ট্যুর দিতে চান কিন্তু পাসপোর্ট দুর্বল বলে হতাশ তাদের একটা ধারনা দিতেই এই আর্টিকেল টি। 

Read More